সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২: যারা সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি খোঁজ করছেন। তাদের জন্য আজকের এই পোস্ট টি সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি Ramadan Calendar 2022 Sunamganj Sehri & Iftar Time দেয়া হয়েছে। এখান থেকে আপনি খুব সহজেই সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি পুরো মাসের জন্য পেয়ে যাবেন। তাই আর দেরি না করে আজকের এই পোষ্ট মনোযোগ সহকারে পড়ুন আর দেখে নিন সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি।

হবিগঞ্জ জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

সিলেট জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

নওগাঁ জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

রাজশাহী জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

বগুড়া জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

সিরাজগঞ্জ জেলার সেহরি_ইফতারের সময়সূচী – রমজান ২০২২

পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের রাকআত সংখ্যা ও পড়ার নিয়ম

রোজার নিয়ত সাহরি ইফতারের-দোয়া

সুনামগঞ্জ জেলার রোজার সময়সূচী ২০২২

পবিত্র মাহে রমজান প্রত্যেক মুসলমানের জন্য একটি পাক পবিত্র হওয়ার মাস। তাই প্রত্যেক ধর্মপ্রাণ মুসলমান আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য সেহরি ও ইফতারের সময় মেনে রোজা রাখে। আজকের এই পোস্টে সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি দেওয়া হয়েছে।

সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০২২

যারা এখনো সুনামগঞ্জ জেলার রমজানের সময়সূচী ২০২২ ডাউনলোড করতে পারেননি। তারা আজকে আমাদের এই পোস্ট থেকে সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ২০২২ খুব সহজেই ডাউনলোড করতে পারবেন। এবং অবশ্যই সুনামগঞ্জ জেলার রমজানের ক্যালেন্ডার ২০২২ সবার সাথে শেয়ার করবেন। আরো দেখতে পারবেনা আজকের সুনামগঞ্জ জেলার সেহরির শেষ সময় ২০২২ ও আজকের সুনামগঞ্জ জেলার ইফতারের শেষ সময় ২০২২।

সুনামগঞ্জ জেলার রমজানের সময়সূচী ২০২২

যারা সুনামগঞ্জ জেলার জন্য সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি পেতে চায়। তাদের জন্য আজকের এই পোস্টে আমরা তুলে ধরেছি সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ‌। তাই আজকের পোস্ট এর নিচের অংশ থেকে দেখে নিন সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি। এবং অবশ্যই সবার সাথে সুনামগঞ্জ জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি শেয়ার করুন।

 

রোজার নিয়ত ও ইফতারের দোয়া

আল্লাহ তায়ালা প্রত্যেক মুসলমানদের জন্য রোজা ফরজ করে দিয়েছে। তাই সঠিক নিয়মে সকলকে রোজা রাখতে হবে। এবং আল্লাহ তায়ালার হুকুম পালন করতে হবে।

অনেকে আছে রোজা রাখার জন্য, রোজার নিয়ত ইফতারের দোয়া ও সেহরির দোয়া শিখতে চায়। তাদের জন্য আজকের এই পোস্টে রোজার নিয়ত ইফতারের দোয়া সেহরির দোয়া আরবী, বাংলা উচ্চারন ও অর্থ দেয়া হয়েছে।

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন, যে ব্যক্তি ঈমানের সঙ্গে সওয়াবের আশায় রমজানের রোজা রাখে, (অন্য বর্ণনায়) ঈমানের সঙ্গে সওয়াবের আশায় তারাবির নামাজ পড়ে, তার অতীতের সকল গুনাহ মাফ করে দেয়া হয়। (বুখারি শরিফ: হাদিস নং ১৯০১)

রোজার নিয়ত : আরবীতে উচ্চারণ

نَوَيْتُ اَنْ اُصُوْمَ غَدًا مِّنْ شَهْرِ رَمْضَانَ الْمُبَارَكِ فَرْضَا لَكَ يَا اللهُ فَتَقَبَّل مِنِّى اِنَّكَ اَنْتَ السَّمِيْعُ الْعَلِيْم

রোজার নিয়ত : বাংলা উচ্চারণ

রমজানের রোজার জন্য সুবহে সাদিকের পূর্বে মনে মনে এই নিয়ত করবেন:

নাওয়াইতু আন আছুম্মা গাদাম মিন শাহরি রমাজানাল মুবারাকি ফারদাল্লাকা, ইয়া আল্লাহু ফাতাকাব্বাল মিন্নি ইন্নিকা আনতাস সামিউল আলিম।

বাংলায় অর্থ : হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল পবিত্র রমজানের তোমার পক্ষ থেকে নির্ধারিত ফরজ রোজা রাখার ইচ্ছা পোষণ (নিয়্যত) করলাম। অতএব তুমি আমার পক্ষ থেকে (আমার রোযা তথা পানাহার থেকে বিরত থাকাকে) কবুল কর, নিশ্চয়ই তুমি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞানী।

ইফতারের কিছুক্ষণ পূর্বে ‘ইয়া ওয়াসিয়াল মাগফিরাতি, ইগফিরলী’ এ দোয়াটি বেশী বেশী পড়তে হবে। অর্থঃ হে মহান ক্ষমা দানকারী! আমাকে ক্ষমা করুন। (শু‘আবুল ঈমান: ৩/৪০৭)

ইফতারের দোয়া: আরবিতে উচ্চারণ

اَللَّهُمَّ لَكَ صُمْتُ وَ عَلَى رِزْقِكَ وَ اَفْطَرْتُ

ইফতারের দোয়া : বাংলা উচ্চারণ

আল্লাহুম্মা লাকা সুমতু, ওয়া আ’লা রিযক্বিকা আফত্বারতু।

বাংলা অর্থ :
হে আল্লাহ! আমি তোমারই জন্যে রোজা রেখেছি এবং তোমারই দেওয়া রিজিক দ্বারা ইফতার করছি।

সেহরির দোয়া

আমাদের সকলেরই সেহেরি দোয়া শিখে সেহরি খাওয়া সকলের জন্য উত্তম কাজ।

সেহরির দোয়া:

আরবিতে উচ্চারণ

نَوَيْتُ اَنْ اُصُوْمَ غَدًا مِّنْ شَهْرِ رَمْضَانَ الْمُبَارَكِ فَرْضَا لَكَ يَا اللهُ فَتَقَبَّل مِنِّى اِنَّكَ اَنْتَ السَّمِيْعُ الْعَلِيْم

বাংলায় উচ্চারণ:
নাওয়াইতু আন আছুম্মা গাদাম মিন্ শাহরি রমাজানাল মুবারাকি ফারদাল্লাকা, ইয়া আল্লাহু ফাতাকাব্বাল মিন্নি ইন্নিকা আনতাস্ সামিউল আলিম।

বাংলা অর্থ:
হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল পবিত্র মাহে রমজানের নির্ধারিত ফরজ রোজা রাখার নিয়ত করলাম। অতএব তুমি আমার রোযা তথা পানাহার থেকে বিরত থাকাকে কবুল কর, নিশ্চয়ই তুমি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞানী।

উপরে রমজানের মাসের ৩০ টি রোজা সময়সূচী দেয়া হয়েছে। আশা করি আপনারা এই সময় অনুযায়ী রোজা রাখতে পারবেন। আপনারা চাইলে অন্যদেরকে এই পোস্টটি শেয়ার করে রমজান মাসের রোজার সময়সূচি জানাতে পারবেন।

About Post Author

Leave a Comment

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: